শরণখোলা

শাফিয়া

শরণখোলা: সাগরে নিখোঁজ জেলেমাঝিদের খোঁজ

সন্তানরা গরিব থাকুক, তা চাননা শরণখোলার লোকেরা। চাষ করার মত যথেষ্ট জমি নাই, তারওপর কাজে না গিয়ে ছেলেমেয়েরা পড়ছে যেহেতু, তাই সংসারে খাবারাদি-কাপড়চোপড় সরবরাহ ঠিক রাখতে সাগরমুখো জেলেপেশায় নামছেন এককালের ক্ষেতচাষীরা।

Faraji Fishing Boat Owner

সাগর-গাঙ্গে আমাদের মাছ ব্যবসা

বোট মালিকরা তো চান ঝুঁকি কিভাবে কমায়ে রাখা যায়। নিজের নৌকার জেলেমাঝিদের তো কেউ আর বিপদে ফেলতে চান না। কিন্তু আমরা যখন কথা বললাম আরো আরো মালিকদের সাথে যে, বোটগুলা আরো নিরাপদ করতে, দুর্ঘটনায় আরো সাবধানে থাকতে কী করেন তারা, সেই বিষয়ে মনে হলো তাদের সামর্থ্য কম আছে।

Rayenda Ghat

নদীপথে যোগাযোগ ফের চালু হলে রায়েন্দায় জীবন সহজ হবে

লঞ্চঘাটের ব্যাপারে দিনরাত মানুষ কথা বলেন নিজেদের মধ্যে এলাকায়। রাস্তার যোগাযোগে তাদের হচ্ছে না, নৌযোগাযোগ ফের চালু হওয়া দরকার। আমি এমন অনেক লোকের সাথে লম্বা আলাপ করেছি। সেখান থেকে কিছু কাহিনী তুলে ধরছি। তাহলে আপনারাও বুঝতে পারবেন কেনো তাদের নৌযোগাযোগ দরকার।

বেড়িবাঁধের বাইরে যারা থাকেন

ভোলা এবং বলেশ্বর নদীর পাড়ে বেড়িবাঁধে ঘেরা আমাদের শরণখোলা। হারিকেন-ঘূর্ণিঝড়-সুনামির তুফানে মানুষের জানমাল রক্ষা করে এই বেড়িবাঁধ। কিন্তু ভোলা নদীর এই বেড়িবাঁধের বাইরেই নদীর চরে থাকতে হয় প্রায় দশ হাজার মানুষকে, যাদের নিজেদের বসতভিটা বা চাষের জমি নাই।